শেখ হাসিনার মধুভাষা ও অন্যান্য ফেসবুক ষ্ট্যাটাস ব্যাকআপ

প্রাকটিস মেকস এ ম্যান পারফেক্ট। আর প্রাকটিস মেকস শেখ হাসিনা লাজওয়াব। বস্তির মাগিদের মতো খোচায়া কথা বলতে বলতে তিনি যেই পর্যায়ে গেসেন, তার আর কোন তুলনা নাই। আখতারুজ্জামান ইলিয়াসের ‘চিলেকোঠার সেপাই’ বইয়ে সত্তরের দশকের ঢাকার বস্তিতে দুই মহিলার মধ্যে ঝগড়ার একটা বয়ান আছে। সেইখানে খিজিরের বউ এর সাথে ফজলুর বউ এর ঝগড়ার যে ঘটনা, পড়লে মনে হয় ইলিয়াস বস্তির মানুষ। “চান্দে চান্দে পুলিশের চোদন না খাইলে চোট্টাগো গতরের মইদ্যে ফোসকা পড়বো না? হাজত না চোদাইয়া বৌ পোলাপানের ভাত দিবার পারে না, হেই চোট্টা মরদের মুখের মইদ্যে আমি প্যাসাব করি”। ষ্টানিং!!

সেই ইলিয়াসও মনে হয় শেখ হাসিনার কথা শুনলে তব্দা খায়া যাইতেন। Continue reading

Advertisements

মিশরঃ নেতৃত্বের ত্যাগ স্বীকার

মিশর অদ্ভুত একটা সময়ের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। এ সময় পার হলে কি পৃথিবী নতুন এক সিংহ কে দেখবে, আগুনে পুড়ে পুড়ে যে আরো শক্তিশালী হয়েছে? আমার ধারণা, শক্তিশালী অর্থনীতি এবং তারচেয়ে শক্তিশালী সামরিক শক্তি না থাকলে সেই স্বপ্ন পূরণ হবে না।

তবে এইটা স্বীকার করতে হবে, মিশর অনন্য। যেই এরদোগান ইসরায়েলের ধুরন্ধর নেতা শিমন পেরেজকে পুরা পৃথিবীর সামনে বুড়া আঙ্গুল দেখিয়ে ওয়াকআউট করেছিলেন, সেই এরদোগানও এফজেপির নেতা ড. বালতাজির মেয়ের মৃত্যুর পর তার চিঠির পড়ে অশ্রু আটকে রাখতে পারেননাই। আর সেই বালতাজিকে যখন সেনারা কালকে গ্রেফতার করলো, তার হাসি আর দেখে কে?? অদ্ভুত ধরণের মানুষ এইগুলা। Continue reading

জাফর ইকবালের মিথ্যা বলার অধিকার

আজ সারাদিন যতবার ইন্টারনেটে বসেছি বারবার ঘুরে ফিরে চোখের সামনে এসেছে জাফর ইকবালের লেখা “মিথ্যা বলার অধিকার”। বিপক্ষের বিভিন্ন বিশ্লেষণ, কখনো উপহাস দেখেছি। উনার কাল্টের সদস্যদের বিভিন্নরকম ত্যানা পেঁচানো ফ্যালাসিও দেখেছি। জাফর ইকবাল গ্রহণযোগ্য না অগ্রহণযোগ্য, সে বিতর্কে যাওয়ার আগে বরং অবিসংবাদিত সত্য হলো জাফর ইকবাল বর্তমান বাংলাদেশের হ্যামিলনের বাঁশিওয়ালা। বাঁশি বাজাতে বাজাতে ইঁদুরের পালকে এই ভদ্রলোক নিয়তির দিকে নিয়ে যাচ্ছেন। হাজারো ইঁদুরের একজন ইঁদুর হয়ে আমিও আমার কথাগুলো লিখে রাখছি।

আমি একসময় জাফর ইকবালকে বলতাম নবী। Continue reading

আযাদ সাইমুমঃ ভাই একটু ক্ষান্ত দেন, একটু মাফ করেন প্লিজ

ভাই বিশ্বাস করেন আমি আপনারে ফলো করে, গোয়েন্দাগিরি করে এই ছবি দেখিনাই। এক ছোটভাই দিলো। তারপর গুগল ইমেজ সার্চ করে আর কিছু দেখার বাকি নাই।

ভাই, আপনে মিশরে আছেন। এই মুহুর্তে আপনার একটা বড় দায়িত্ব ছিলো। বিশাল একটা কাজ করার সুযোগ ছিলো। তার বদলে আপনি বিশ্ব ইসলামী আন্দোলনের সিপাহসালার হয়া গেসেন। লোকজন কমেন্ট করে, আযাদ ভাই আপনে না থাকলে কি যে হতো আম্রা কিছুই জানতাম না অন্ধকার যুগের প্রাচীন গুহায় পড়ে থাকতাম। আপনিও খুশী। ছাগুরাও খুশী। Continue reading

জাফর ইকবাল হেফাজত এবং আদিলুর প্রসঙ্গে

সেক্যুলার জাফর ইকবাল তার শিক্ষিত সুশীল ও ভদ্র চেহারার আড়ালে লুকিয়ে থাকা দাঁতালো পশু স্বত্ত্বাটা আর চেপে রাখতে পারলেন না। আজকে তিনি অধিকার সম্পাদক আদিলুর রহমান খান প্রসঙ্গে কলাম লিখলেন। কিন্তু আদিলুর কি তার আসল টার্গেট? জাফর ইকবালের শত্রু মূলত পাঁচ তারিখ রাতে ঢাকা কাঁপিয়ে দেয়া দাড়ি টুপি ওয়ালা মানুষগুলো। আদিলুর যদি আজকে মতিঝিল হত্যা নিয়ে তদন্ত না করে বরং আওয়ামী লীগের দালাল হতেন, বুকে হাত দিয়ে বলুন তো জাফর কি তাহলে আজ তার চরিত্রহনন করে কলাম লিখতেন?

দাড়ি টুপি ঘোমটা বোরকা দেখলে যে সেক্যুলার শাহবাগিদের পিত্তি জ্বলে যায়, ব্যাথা চেপে রাখা অসহ্য হয়ে পড়ে সেই জানোয়ারদের পান্ডা হলো জাফর ইকবাল। কলম আর বুদ্ধির সাইনবোর্ডের আড়ালে লুকিয়ে থাকা এই পশু জাফর ইকবাল হাজারটা যুবলীগের দুবৃত্ত থেকেও বেশি বড় পশু। Continue reading

হিযবুতি ভাবনা

সব জাতিতে কিছু না কিছু মীরজাফর টাইপের কুলাঙ্গার থাকে, খুব এক্সট্রা অর্ডিনারী ধনী বা নামকরা লোকের সাধারণত একটা হলেও জারজ সন্তান থাকে, অনেক বড় বড় পরিবার বা খান্দানে একটা হলেও ব্ল্যাক শিপ থাকে, খুবই অসাধারণ সুন্দরীর ক্ষেত্রে দেখা যায় একটা হলেও কলংক আছে।

সব ধর্মীয় ও নীতিগত বন্ধনের বাইরে গিয়ে তৃতীয় মাত্রা থেকে দেখলে, সোজা কথায় বলে দেয়া যায় ইসলাম নামের পরিবারের জারজ সন্তান হলো মুনাফিকরা। বর্তমান বিশ্বের ইসলামপন্থীদের জারজ ভাই হলো হিযবুত তাহরীরের ভাইরা। এই জারজ ভাইদেরকে মেনে নেয়া ছাড়া এই বিশাল পরিবারটার আর কি করার আছে আমার ক্ষুদ্র জ্ঞানে ঠিকমতো বুঝে আসে না। Continue reading

শেখ মুজিবের মৃত্যুবার্ষিকী

মিশর এবং বাংলাদেশের মাঝে অদ্ভুত মিলঃ সরকারী বাহিনীর গণহত্যা এবং সুশীলদের সমর্থন।
মিশর এবং বাংলাদেশের মাঝে সবচেয়ে বড় পার্থক্যঃ গণহত্যার চব্বিশ ঘন্টার ভেতরে পুরো মিশরে অন্তত ৫০ জন পুলিশ ও সেক্যুলার শাহবাগি পান্ডা নিহত। বাংলাদেশে কিছু হয়নাই।

বাঙ্গালী শক্তের ভক্ত নরমের যম, পরস্ত্রীকাতর, ষড়যন্ত্রপরায়ণ এবং ভীরু জাতি। খোদাতায়ালা এভাবেই বানিয়েছেন। একবারই বাঙ্গালী তার স্বভাববিরুদ্ধ কাজ করেছিলো। ১৯৭৫ সাল।

যদিও শেখ মুজিবকে রাতের অন্ধকারে হত্যা করাটা আমার পুরোপুরি পছন্দ হয়নাই। Continue reading