হেফাজতের গণহত্যা ও শুভ্র গ্রেফতার প্রসঙ্গে জয়ের বিবৃতি

বোকা মানুষদের চুপ করে থাকা ভালো, জীবন থেকে স্বশিক্ষিত গ্রামীণ এক মহিলাও তা জানতেন। তাই শ্বাশুড় বাড়িতে যাওয়ার সময় সদ্য বিবাহিত পুত্রকে উপদেশ দিয়েছিলেন, বাবা চুপ করে থাকবি আর মুচকি মুচকি হাসবি! মাতৃআজ্ঞা পালন করে পুত্র অনেক কষ্ট করে সারা দিন চুপ করেই ছিলো, আর সবাই মনে করছিলো বাহ জামাই তো খুবই জ্ঞানী আর স্বল্পবাক। কিন্তু সহ্যের একটা সীমা আছে। রাতের বেলা খাবার টেবিলে সবাই বিয়ে প্রসঙ্গে বিভিন্ন কথা বলছিলো। তার পক্ষে আর চেপে রাখা সম্ভব হলো না, মুচকি হাসতে হাসতেই সে শুশুরকে জিজ্ঞাসা করে বসলো, আব্বা আপনি কি বিয়ে করেছেন?
_______

শেখ হাসিনা ভালো করেই জানে তার পুত্রধন জয় কি জিনিস। তাই তাকে সারাজীবন দেশের বাইরে রেখেছে। শিখ ইহুদি বিলাতি দেশী যা ইচ্ছা তা নিয়ে ফুর্তি করুক, মদ খেয়ে গাড়ি চালাক আর উপদেষ্টাদের এর তত্ত্বাবধানে গোপনে কমিশন উপার্জন করুক, দেশের মানুষ তো জানছে না। শেখ রাজবংশের সুনামটাও অটুট রইলো! কিন্তু ইন্টারনেট এসে সব বরবাদ করে দিসে। পুরো দুনিয়া এখন এক হয়ে গেছে, আম্রিকায় বসে থাকলে আসল চেহারা আর লুকিয়ে রাখা যায় না।
_______

জয় প্রথম মুচকি হেসে দিয়েছিলো সে দিন, যখন সে দেশে বোরকার সংখ্যা বেড়ে যাচ্ছে এবং জঙ্গীবাদের উত্থান হচ্ছে বলে র‍্যাডিকেল ইসলামোফোবিকদের সাথে জয়েন্ট আর্টিকেল লিখেছিলো। কিছুদিন আগে ফট করে আবারও সে হেসেছিলো, আইন আদালত জুডিশিয়ারি সব কিছু আওয়ামী লীগের কথামতো চলে এটা প্রমাণ করে দিয়ে। এবং আজকেও সে আরেকবার তার হাসি চেপে রাখতে পারেনি। ফেসবুক পেজে বিবৃতি দিয়েছে, অধিকার সম্পাদক আদিলুর রহমান খানকে গ্রেফতার করা ঠিক হয়েছে। কারণ কি? কারণ তারা শাপলা চত্বরের গণহত্যায় নিহতের সংখ্যা নিয়ে মিথ্যাচার করেছে!
_______

শাহবাগিরা আওয়ামী লীগের নামের আগে মাঝে মাঝে বিশেষণ বসায় ‘গণমানুষের দল’! সার্কাস, সার্কাস!! আওয়ামী লীগ এখন একটা শাহবাগি রাম-বাম আক্রান্ত গণবিচ্ছিন্ন দল। সত্যি গণমানুষের দল হলে জনগণের পালস বুঝার চেষ্টা করতো তারা। ইউটিউবের ভিডিও ক্লিপ আর অন্যদের বিবৃতির মিথ্যা ও বিকৃত ব্যাখ্যা দিয়ে শাপলা চত্বরে সে রাতে কিছু হয়নি এইটা প্রমাণ করার চেষ্টা যে করে সেও ঐ খুনের দোসর। বিদ্যুৎ নিভিয়ে মিডিয়া সরিয়ে সে রাতে কি হয়েছে তার যেহেতু কোন প্রমাণ নেই, সারা দেশের মানুষ যদ্দুর বুঝার ও ভাবার তা নিজ দায়িত্বে বুঝে নিয়েছে। এই পাবলিক পালসের বিরুদ্ধে যাওয়ার মতো বেকুবগিরি জয়ের পক্ষে করা সম্ভব হয়, যখন সে আজীবন র’ এর তত্ত্বাবধানে প্রতিপালিত হয় ব্রেইনওয়াশড হয়, এবং শাহবাগি সুশান্ত দাশগুপ্তরা তার জন্য বিবৃতি লিখে দেয়।
_______

আমেরিকানদের ভাগ্য ভালো যে তারা আব্রাহাম লিংকনের মতো নেতা পেয়েছে। আমরা দুর্ভাগা আমরা জয়ের রাজ্য অভিষেকের জন্য অপেক্ষা করি। বোকাদের যে চুপ করে থাকা উচিত, আব্রাহাম লিংকন চমৎকারভাবে এ কথাটা বলেছিলেন “বেটার টু রিমেইন সাইলেন্ট এন্ড বি থট আ ফুল দ্যান টু স্পিক এন্ড রিমুভ অল ডাউট”। জাতির নাতি জয় এখন সন্দেহ নিরসনের সংগ্রামে নেমেছে।
_______

সুতরাং জয় যখন মুখ খুলেই ফেলেছে, তার বিপক্ষের কি করা উচিত? তাও বলে গিযেছেন নেপোলিয়ান বোনাপার্ট “নেভার ইনটারাপ্ট ইউর এনিমি হয়েন হি’জ মেকিং আ মিসটেক”। জয় একটা বিবৃতি দিয়েছে ৫মে রাতে তেমন কিছু হয়নি, গণহত্যা তো দূরের কথা। এই বিবৃতিটা জয়ের ছবিসহ ছাপিয়ে বহুল প্রচারের ব্যাবস্থা করা উচিত। তার বিরুদ্ধে কথা বলার কোন দরকার দেখি না।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s