তোমরা যারা ভোট দাওনি

তোমরা যারা ভোট দাওনি …

একাত্তরে আমরা যুদ্ধ শুরু করেছিলাম ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য।

যুদ্ধের অন্যতম শত্রু পাকিস্তানী আর্মি সেই বছর ডিসেম্বরে আত্মসমর্পণ করেছিলো বটে। তবে আমাদের স্বাধীনতার যুদ্ধ কিন্তু একাত্তরে শেষ হয়ে যায়নি। বরং যুদ্ধ চলেছে দীর্ঘ তেতাল্লিশ বছর ধরে। পৃথিবীর ইতিহাসে এতো দীর্ঘ সময় ধরে আর কোন স্বাধীনতা যুদ্ধ হয়নি। আমি মনে করি আমাদের চুড়ান্ত বিজয় অর্জিত হয়েছে গতকাল পাঁচ জানুয়ারী জাতীয় নির্বাচনের মাধ্যমে। এটি হলো বাংলাদেশের ইতিহাসের পাতায় সোনালী অক্ষরে খচিত একটি তারিখ, নতুন প্রজম্মের স্বাধীনতা দিবস।

উচ্চ আদালত ও শাহবাগের গৌরবময় যৌথ সংগ্রামের ফলে আমাদের দীর্ঘ স্বাধীনতা যুদ্ধের আসল শত্রুপক্ষ বিএনপি-জামায়াত জোট জাতীয় নির্বাচনে প্রতিহত হয়েছে। মুক্তিযুদ্ধের দল আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে পুরো জাতি আনন্দমুখর উৎসবের সাথে নির্বাচন পালন করেছে। পুরো জাতির জন্য এটি একটি আনন্দময় অভিজ্ঞতা।

তবে আমি গভীর বেদনার সাথে লক্ষ্য করলাম কিছু বিপথগামী মানুষ গতকাল ভোট দিতে যায়নি। এটি একটি মন খারাপ করার মতো বিষয়। এটি নিয়ে আমি অনেক ভেবেছি। পুরো দেশ আনন্দমুখর পরিবেশে বিজয় উদযাপন করার পরও এ নিয়ে আমার দুর্ভাবনা রয়ে গেছে।

যখন আমি এটা লিখছি, তখন আমাদের দেশ স্বাধীন। পাঁচ জানুয়ারীর ঐতিহাসিক নির্বাচন সুষ্ঠভাবে সম্পন্ন হয়েছে। সমস্যা হলো এই স্বাধীন দেশে কিছু অমানুষ রয়ে গেছে, যারা ভোট দিতে যায়নি। একদিন ছোট ছোট বাচ্চারা গম্ভীর মুখে আমাদের প্রশ্ন করবে, তোমরা ঐসব স্বাধীনতার শত্রুদের বিষয়ে কি করেছিলে? তখন আমরা কি উত্তর দেবো, বিষয়টা নিয়ে ভাবা দরকার।

আমি দেখেছি গণিতের বিষয়গুলো এমনভাবে যুক্তির পর যুক্তি দিয়ে দাঁড় করানো হয় যে, কেউ আর তার বিরোধিতা করতে পারেনা। অন্য যে কোন বিষয়কে একেকজন একেকভাবে ব্যাখ্যা করে, বিরোধিতা করে। সুতরাং জাতির এ চুড়ান্ত বিজয়লগ্নে শেষ সমস্যাটাকে গণিতের আলোকে সমাধান করতে হবে। সাদা চামড়া দেখলেই আপ্লুত হওয়ার দিন মনে হয় শেষ হয়ে এসেছে। এখন কালো চামড়া দেখে আপ্লুত হতে হবে এবং গণিত দিয়ে সব সমস্যার চুড়ান্ত সমাধান বের করতে হবে।

তাই আমি বিশ্বাসে বুক বেঁধেছি। আমাদের দেশের অপূর্ব মানুষগুলো আমাদের শক্তি। এই শক্তি দিয়ে কিভাবে গণিতের আলোকে শেষ সমস্যার সমাধান হবে, কিভাবে সেটি করা হবে, আমরা জানিনা। কিন্তু সেটি করতে হবে। তোমরা যারা ভোট দাওনি, নিজেকে স্বাধীনতার শত্রু প্রমাণ করে দিয়েছো, তোমাদের ভারে ভারাক্রান্ত এই বাংলাদেশকে আর দেখতে চাইনা।

লেখক: অধ্যাপক, ড্রোন আবিস্কারক, চেতনা ও কল্পকাহিনী প্রণেতা
০৬/০১/২০১৪

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s