আবু রেজা নদভিঃ জামাতি? না কি আওয়ামী?

আবু রেজা মুহাম্মদ নিজামুদ্দিন নদভি এক বিস্ময় মানব, জীবন্ত এক কিংবদন্তী। চট্টগ্রাম সাতকানিয়ার এক দরিদ্র মাদ্রাসা শিক্ষক মওলানা ফজলুল্লাহর ছেলে। এককালে মাদ্রাসার লিল্লাহ ফান্ডের খরচে তার পড়ালেখা ও হোষ্টেলে থাকা খাওয়া চলতো। আর আজ আবু রেজা নামে ও বেনামে হাজার হাজার কোটি টাকার মালিক। বিলাসবহুল বাড়ি, গাড়ি বহর, বাগানবাড়ি, রক্ষিতা ও ঘেটুপুত্রের দল, আন্তর্জাতিক কানেকশন। একটা এনজিও ছাড়া তার কাগজে কলমে কোন উপার্জনের উৎস নেই, আর তার সম্পদেরও সীমা নেই এখন।

আবু রেজার নেটওয়ার্ক, এমন যোগাযোগ ও প্রতিপত্তি বাংলাদেশের অনেক মন্ত্রীরও নেই। আবু রেজার টাকার উৎস বিদেশ, টাকা থেকে মুনাফা জেনারেটও হয় বিদেশ সংক্রান্ত উপার্জন থেকে। অস্ত্র ও মানব (নারী ও শিশু পাচার) ব্যাবসায় আবু রেজা লগ্নি করে, কিন্তু সরাসরি জড়িত হয় না। নিজের ব্যাক্তিগত বিষয়কে মিডিয়া ও লোকচক্ষুর আড়ালে রাখতে আবু রেজা সবসময়ই সচেতন থেকেছে। শেখ হাসিনা তাকে যথাযথ কারণ ছাড়া নমিনেশন দেয়নাই। তার এই অদ্ভুতভাবে উপরে উঠার মূলকথা একটাই, যে দেবতা যেই ফুলে সন্তুষ্ট, আবু রেজা ঠিক সে ফুল দিয়েই সে দেবতার পুজা করে। কোন মানুষটা কি পেলে খুশী, তা বের করায় তার সমকক্ষ মানুষ তেমন একটা নাই। Continue reading

ইসলাম ম্যানিয়া

মাঝে মাঝে মনে হয় ইসলাম-ম্যানিয়া নিয়ে সংক্ষিপ্ত একটা নোট লিখি। কিন্তু আইলসামি আর প্রেরণার অভাবে হয়ে উঠেনা। তাছাড়া ভাই বেরাদারদের লাফালাফি দেখে মায়াও লাগে একটু। কিন্তু আজকে একটা হাগু-কান্ড দেখে মনে হলো, আলসেমি ঝেড়ে ফেলে মানবসভ্যতার ফেসবুক ইতিহাসে একটা ছোট নোটের অবদান রেখেই যাই তাহলে!

ইসলাম-ফোবিয়া তো সবাই চিনি। কারো মাথায় টুপি বা হিজাব দেখলে শাহবাগিদের যে চিড়িং বিরিং জ্বালা শুরু হয় এইটা হলো ফোবিয়া। বাস্তবতা হলো, মিতা হক মুনতাসির মামুন এইরকম ইসলামোফোবিক শুকর বাংলাদেশে কমই আছে। পৃথিবীর অন্যান্য দেশে এরা আরো অনেক বেশি ভোকাল এবং একটিভ। বাংলাদেশে থাবা বাবার দল কেবলমাত্র অন্য দেশকে নকলই করেছে। স্বাভাবিক, আমরা নকলবাজিতে বিশ্ব সেরা। ইংলিশ ডিফেন্স লীগের কাজকর্ম যারা নিজ চোখে দেখেছে, তারা জানে তারিক আনাম ভিসি জানোয়ারের দল তুলনামুলকভাবে বরং ইসলামোফোবিক শিশু।

এই ফোবিয়ার বিপরীতে আরেকটা ধারা আছে, ঐটার নাম ম্যানিয়া। Continue reading

মিশরঃ নেতৃত্বের ত্যাগ স্বীকার

মিশর অদ্ভুত একটা সময়ের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। এ সময় পার হলে কি পৃথিবী নতুন এক সিংহ কে দেখবে, আগুনে পুড়ে পুড়ে যে আরো শক্তিশালী হয়েছে? আমার ধারণা, শক্তিশালী অর্থনীতি এবং তারচেয়ে শক্তিশালী সামরিক শক্তি না থাকলে সেই স্বপ্ন পূরণ হবে না।

তবে এইটা স্বীকার করতে হবে, মিশর অনন্য। যেই এরদোগান ইসরায়েলের ধুরন্ধর নেতা শিমন পেরেজকে পুরা পৃথিবীর সামনে বুড়া আঙ্গুল দেখিয়ে ওয়াকআউট করেছিলেন, সেই এরদোগানও এফজেপির নেতা ড. বালতাজির মেয়ের মৃত্যুর পর তার চিঠির পড়ে অশ্রু আটকে রাখতে পারেননাই। আর সেই বালতাজিকে যখন সেনারা কালকে গ্রেফতার করলো, তার হাসি আর দেখে কে?? অদ্ভুত ধরণের মানুষ এইগুলা। Continue reading

আযাদ সাইমুমঃ ভাই একটু ক্ষান্ত দেন, একটু মাফ করেন প্লিজ

ভাই বিশ্বাস করেন আমি আপনারে ফলো করে, গোয়েন্দাগিরি করে এই ছবি দেখিনাই। এক ছোটভাই দিলো। তারপর গুগল ইমেজ সার্চ করে আর কিছু দেখার বাকি নাই।

ভাই, আপনে মিশরে আছেন। এই মুহুর্তে আপনার একটা বড় দায়িত্ব ছিলো। বিশাল একটা কাজ করার সুযোগ ছিলো। তার বদলে আপনি বিশ্ব ইসলামী আন্দোলনের সিপাহসালার হয়া গেসেন। লোকজন কমেন্ট করে, আযাদ ভাই আপনে না থাকলে কি যে হতো আম্রা কিছুই জানতাম না অন্ধকার যুগের প্রাচীন গুহায় পড়ে থাকতাম। আপনিও খুশী। ছাগুরাও খুশী। Continue reading

জাফর ইকবাল হেফাজত এবং আদিলুর প্রসঙ্গে

সেক্যুলার জাফর ইকবাল তার শিক্ষিত সুশীল ও ভদ্র চেহারার আড়ালে লুকিয়ে থাকা দাঁতালো পশু স্বত্ত্বাটা আর চেপে রাখতে পারলেন না। আজকে তিনি অধিকার সম্পাদক আদিলুর রহমান খান প্রসঙ্গে কলাম লিখলেন। কিন্তু আদিলুর কি তার আসল টার্গেট? জাফর ইকবালের শত্রু মূলত পাঁচ তারিখ রাতে ঢাকা কাঁপিয়ে দেয়া দাড়ি টুপি ওয়ালা মানুষগুলো। আদিলুর যদি আজকে মতিঝিল হত্যা নিয়ে তদন্ত না করে বরং আওয়ামী লীগের দালাল হতেন, বুকে হাত দিয়ে বলুন তো জাফর কি তাহলে আজ তার চরিত্রহনন করে কলাম লিখতেন?

দাড়ি টুপি ঘোমটা বোরকা দেখলে যে সেক্যুলার শাহবাগিদের পিত্তি জ্বলে যায়, ব্যাথা চেপে রাখা অসহ্য হয়ে পড়ে সেই জানোয়ারদের পান্ডা হলো জাফর ইকবাল। কলম আর বুদ্ধির সাইনবোর্ডের আড়ালে লুকিয়ে থাকা এই পশু জাফর ইকবাল হাজারটা যুবলীগের দুবৃত্ত থেকেও বেশি বড় পশু। Continue reading

হিযবুতি ভাবনা

সব জাতিতে কিছু না কিছু মীরজাফর টাইপের কুলাঙ্গার থাকে, খুব এক্সট্রা অর্ডিনারী ধনী বা নামকরা লোকের সাধারণত একটা হলেও জারজ সন্তান থাকে, অনেক বড় বড় পরিবার বা খান্দানে একটা হলেও ব্ল্যাক শিপ থাকে, খুবই অসাধারণ সুন্দরীর ক্ষেত্রে দেখা যায় একটা হলেও কলংক আছে।

সব ধর্মীয় ও নীতিগত বন্ধনের বাইরে গিয়ে তৃতীয় মাত্রা থেকে দেখলে, সোজা কথায় বলে দেয়া যায় ইসলাম নামের পরিবারের জারজ সন্তান হলো মুনাফিকরা। বর্তমান বিশ্বের ইসলামপন্থীদের জারজ ভাই হলো হিযবুত তাহরীরের ভাইরা। এই জারজ ভাইদেরকে মেনে নেয়া ছাড়া এই বিশাল পরিবারটার আর কি করার আছে আমার ক্ষুদ্র জ্ঞানে ঠিকমতো বুঝে আসে না। Continue reading

রাবেয়া স্কয়ারে দ্বিতীয় গণহত্যা

পৃথিবীর ইতিহাসে রক্তাক্ত আরেকটা দিন। মিশরে শত শত নিহতের মাঝে আছে এফজেপি’র কেন্দ্রীয় নির্বাহী পরিষদ সদস্য ড. মুহাম্মদ বালতাজির একমাত্র মেয়ে আসমা। পাশাপাশি খায়রাত আল শাতির এর মেয়ে নিহত হওয়ার খবর ছড়িয়ে পড়েছে। কিন্তু এইমাত্র আলজাযিরা নিশ্চিত করেছে, খায়রাত আল শাতেরের মেয়ে প্রাণে বেঁচে গেসে।

বাংলাদেশে কোনদিন শুনিনাই তমুক বড় নেতার সন্তান মারা গেছে। সাধারণত গরীব গুর্বারাই ‘শহীদ’ হয়। একটা বড় পার্থক্য আছে। বুঝা যায়। Continue reading